নিয়মিত কলা খাওয়ার গুনাগুন এবং খাওয়ার সঠিক সময়

কলা কে সারাবিশ্বের জনপ্রিয় ফল বলা হয়ে থাকে। ছোট থেকে বড় সবার প্রিয় একটি ফলের নাম হলো কলা। সকালে যে সকল নাস্তা খাওয়া হয় তার মধ্যে ডিমের পরে কলার অবস্থান। এটি এমন একটি ফল যা আমরা বছরের সারা মাসি পেয়ে থাকে। আমাদের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে কলার উপকারিতা সম্পর্কে সবাই কম বেশি জানি। আমাদের অন্ত্রের সুস্থতা রক্ষার জন্য এর গুরুত্ব বলে শেষ করা যাবেনা। কলায় রয়েছে শর্করা যা আমাদের শরীরে দ্রুত শক্তিশ্বর বরাহ করে ক্লান্তি দূর করতে সাহায্য করে থাকেন। সেই সাথে কলা আমাদের শরীরের হজমের সাহায্য করে থাকে। যাদের গ্যাস্ট্রিক রয়েছে তারা পাকা নরম কলা খেয়ে গ্যাস্ট্রিক দূর করতে পারেন। কলা আমাদের শরীরে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার পাশাপাশি পাতলা পায়খানাতেও অনেক উপকাররি। একটি কলা থেকে প্রায় ১০০ ক্যালারি শক্তি পাওয়া যায়। এছাড়াও রয়েছে পটাশিয়াম ক্যালসিয়াম ফসফরাস এবং লৌহ। নিয়মিত কলা খাওয়ার মাধ্যমে আমাদের শরীরের আরো অন্যান্য রোগব্যাতে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কমিয়ে দেয়। এই কলা আমাদের হাতের নাগালে পাওয়া যায় বলেন এর পুষ্টি গুনাগুন জানাটা খুবই জরুরী। অনেকের ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে কলা খেলে শরীরে ওজন বেড়ে যায় আবার কখন কলা কিভাবে খাব সেটি সঠিকভাবে না জানার কারণে অনেক কলা খেতে চাই না। আমাদের আরো জানতে হবে কলা কখন খেতে হবে কখন স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী কোন বয়সে কতটি কলা খাওয়া দরকার। বিভিন্ন বয়সের উপর কলার বিভিন্ন পরিমাণ রয়েছে তাই আমাদের সেই সম্পর্কে কলা খেতে হবে।

নিয়মিত কলা খাওয়ার গুনাগুন এবং খাওয়ার সঠিক সময়
নিয়মিত কলা খাওয়ার গুনাগুন এবং খাওয়ার সঠিক সময়

কলা খাওয়ার উপকারিতা

শরীরের ত্বক ভালো রাখা

একটি মাঝারি আকারের কলাতে রয়েছেন ১৩ শতাংশ ম্যাঙ্গানিজ যা আমাদের প্রতিদিনকার চাহিদা পূরণ করে থাকে। এটি আমাদের খাবারের আকারের তুলনায় পরিপূর্ণ। ম্যাঙ্গানিজ আমাদের শরীরের ত্বক ভালো রাখতে সাহায্য করে থাকে। এই মেঙ্গানিজ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। যা আমাদের শরীরের তারুণ্য বজায় রাখে। এবং শরীরের বিভিন্ন প্রকার দাগ থেকেও রক্ষা করে থাকে।

আমাদের শরীরের পেশার টান পড়া কমিয়ে থাকে

কলাতে রয়েছে ইলেকট্রোলাইট যা আমাদের শরীরকে আর্দ্র রাখতে সাহায্য করে থাকে। আমাদের শরীরের খনিজের ভারসাম্য বজায় রাখতে এবং পেশির টান পড়া কমিয়ে রাখতে কলা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

নিয়মিত লবণের ভারসাম্য রাখা

কলাতে রয়েছে পটাশিয়াম যা আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কলা অন্যান্য খাবারের সঙ্গে লবণের পরিমাণ বেশি থাকলেও কলা খাওয়ার মাধ্যমে সে এটি আমাদের ভারসাম্যহীনতা দূর করে দেয়। শরীরের আমাদের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের সাহায্য করে থাকে। এর ফলে হৃদরোগ বা স্ট্রোকের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়।

ওজন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে থাকে

কলায় অন্যান্য ফলের তুলনায় চিনি এবং পরিমাণ বেশি রয়েছে। পর্যাপ্ত পরিমাণে আজ এবং এন্টিঅক্সিডেন্ট থাকায় আমাদের শরীরে ওজন নিয়ন্ত্রণ রাখতে সাহায্য করে থাকে।

এছাড়াও অন্যান্য উপকারিতা

  • হাড়ের স্বাস্থ্য কলাতে থাকা ক্যালসিয়াম হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
  • শক্তি বৃদ্ধিতে কলাতে থাকা পটাশিয়াম শরীরে শক্তির মাত্রা বৃদ্ধি করে এবং ক্লান্তি দূর করতে সাহায্য করে।
  • আমাদের শরীরের রক্তাল্পতা দূর করে কলাতে থাকা আয়রন রক্তাল্পতা দূর করতে অত্যন্ত উপকারী একটি ফল।
  • আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি কলাতে থাকা ভিটামিন সি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে এবং সর্দি-কাশির মতো সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে থাকে।
  • আমাদের মস্তিষ্কের কার্যকারিতা কলাতে থাকা পটাশিয়াম মস্তিষ্কের কার্যকারিতা বৃদ্ধি করে ও স্মৃতিশক্তি উন্নত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

কলা খাওয়ার সঠিক সময়

খালি পেটে কোনভাবে কলা খাওয়া আমাদের উচিত নয়।

  • সকালের নাস্তার সাথে কলা খেতে পারেন
  • বিকেল বেলার নাস্তার পাশাপাশি কলা খেতে পারেন
  • রাতের খাবারের আগে নিয়মিত কলা খেতে পারেন

নিয়মিত কলা খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। কিন্তু অতিরিক্ত কোন কিছুই ভালো নয়, তাই সঠিক পরিমাণে কলা খাওয়ার অভ্যাস করতে হবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top