শীতকালে চোখের যত্ন কিভাবে নিবেন

সাধারণত শীতকালে চুল এবং ত্বকের যত্ন নিয়ে আমাদের বেশি সচেতন থাকতে হয়। সেজন্য আমাদের শীতকালে বিশেষভাবে চোখে যত্ন নেওয়া হয়ে থাকে। বছরের অন্যান্য মৌসুমের তুলনায় শীতকালে চোখের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। কেননা এই শীতকালীন বাতাসের আদ্রতা কম থাকে। সেজন্য আমাদের চোখ শুষ্ক হয়ে যেতে পারে এবং চোখের দৃষ্টিশক্তিও কমে যেতে পারে। এই জন্য শীতকালে আমাদের চোখের যত্ন বেশি নিয়ে হয়। এই শীতকালে চোখের সমস্যার মধ্যে রয়েছে চোখ জ্বালাপোড়া, চোখ দিয়ে পানি পড়া, চোখ ওঠা, চোখে ঝাপসা দেখা, লাল হয়ে যাওয়া, চোখের কোনায় আঠালো জাতীয় পদার্থ জমা ইত্যাদি সমস্যা দেখা যেতে পারে। এর জন্য চোখ সব সময় পরিষ্কার রাখতে হবে। যাতে করে চোখে কোন ধুলাবালি জমতে না পারে। ঘরের বাইরে থেকে এসে ঠান্ডা পানি দিয়ে চোখ পরিষ্কার রাখতে হবে। কয়েকটি বিষয় মেনে চললে এই সকল সমস্যার সমাধান করে চোখকে পরিষ্কার রাখতে পারেন।

শীতকালে চোখের যত্ন কিভাবে নিবেন
শীতকালে চোখের যত্ন কিভাবে নিবেন

চোখের যত্ন নেওয়ার উপায়

  • সব সময় চোখ পরিষ্কার রাখার চেষ্টা করুন। চোখের ধুলাবালি জমতে দেওয়া যাবে না। ঘরের বাইরে থেকে এসে টিউবওয়েলের ঠান্ডা পানি দিয়ে চোখ ধুয়ে ফেলতে হবে।
  • ভিটামিন-এ যুক্ত খাবার খেতে হবে। কারণ ভিটামিন-এ এরঅভাবে রাতকানা হয়ে থাকে। ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাবার যেমন ডিম কলিজা সবুজ শাকসবজি এটা দেখাতে পারেন। আপনি গাজর এবং দুধ নিয়মিত খেতে পারেন।
  • আমাদের ঘন ঘন চোখ ঘষা যাবেনা। এতে করে আমাদের চোখের কর্নিয়া ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। এই সমস্ত বেড়ে যায় শীতকালের সময়। তাই এই সময় আমাদের সতর্ক থাকতে হয়।
  • আমাদের শরীরের পানির চাহিদা থাকার কারণে চোখের সমস্যা আরও বাড়িয়ে তুলে। সেজন্য আমাদের চোখকে সঠিক আদ্র রাখতে এই শীতকালীন পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করতে হবে।
  • সবুজ শাকসবজি, বাদাম, পালং শাক , গাজর, বিভিন্ন রকম ডাল খেতে পারেন। এগুলো চোখের জন্য ভালো কাজ করে থাকে। শীতকালে বিশেষ করে যে সকল সবজি পাওয়া যায় সেগুলো নিয়মিত খাওয়ার অভ্যাস করুন।
  • দীর্ঘ সময় কম্পিউটার, মোবাইল, ল্যাপটপ এর দিকে তাকিয়ে থাকলে চোখের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। এজন্য কিছুক্ষণ পরপর এই সকল ডিভাইস থেকে দূরে থাকতে হবে।
  • কন্টাক্ট লেন্স ব্যবহার করার ফলে চোখের সমস্যা বেড়ে যেতে পারে এই শীতকালের সময়। আর তাই দিনে দীর্ঘ সময় চোখে কন্টাক্ট লেস ব্যবহার করতে পারবেন না।
  • ভিটামিন-ই খাবার খেতে পারেন। যে সকল খাবারে ভিটামিন-ই পাওয়া যায় সেগুলো নিয়মিত খাওয়ার অভ্যাস করুন।
  • ওমেগা-৩ যুক্ত খাবার আপনার চোখের জন্য খুবই উপকারী। ওমেগা-৩ সমৃদ্ধ খাবার খেয়ে আমাদের চোখকে ভালো রাখতে পারে। এতে করে চোখের জলীয় পদার্থ তৈরি করতে সাহায্য করে থাকে ফলে চোখের শুষ্কতা ভাব থাকে না। প্রয়োজনে আপনি সামুদ্রিক মাছ খেতে পারেন এতে রয়েছে ওমেগা-৩।
  • আপনার ব্যক্তিগত ব্যবহার তো জিনিসপত্র কারো সাথে শেয়ার করবেন না। কারণ এগুলো সংক্রমণ সরাতে সাহায্য করে থাকে।
  • শীতকালে ঘরের বাহিরে যাওয়ার পূর্বে সানগ্লাস ব্যবহার করুন। নিয়মিত চশমা ব্যবহার অভ্যাস করুন। গ্রীষ্মকালে যেমন চশমার গুরুত্ব রয়েছে ঠিক তেমনি শীতকালেও চশমা গুরুত্ব রয়েছে। শীতকালীন সূর্যের অতিবেগ মারাত্মক ক্ষতি কারণ হতে পারে।
  • চোখে কোনরকম সংক্রমণ দেখা দিলে নিজের চিকিৎসা না করে একজন চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন। চোখের শুষ্কতার সমস্যা থাকলে প্রয়োজনে আপনি চোখের ড্রপ ব্যবহার করতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনি একজন চক্ষু চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারেন।
  • হাসিখুশি দেওয়ার সময় আপনার নাক মুখ ঢেকে রাখতে টিস্যু বা আপনার হাতের কনুই ব্যবহার করতে পারেন। এর মাধ্যমে আপনার চোখের সংক্রমণ সরাতে পারে।
  • ধূমপান থেকে বিরত থাকুন। ধূমপান চোখের শুষ্কতার জন্য সরাসরি প্রভাব পড়ে থাকে।
  • আপনার হাত বারে বারে ধুয়ে নিবেন। এতে করে আপনারা হাত চোখে দিলে এতে সংক্রমণ ছড়াবে না। খুব বেশি প্রয়োজন না হলে চোখে হাত দেবেন না।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top