সন্তানের খাওয়ার অভ্যাস কিভাবে বাড়াবেন

বর্তমানে অভিভাবকদের নতুন চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছেন শিশুদের যা ইচ্ছা তাই খাদ্যাভ্যাস করে তোলা। যার কারণে দিকে শিশুরা অপচয়িতা ভুগছেন অন্যদিকে স্থলতা অর্থাৎ ওজন বাড়ার হাড় বেড়ে যাচ্ছে। একদিকে যেমন শিশুর কোমর স্বাস্থ্য হানি দেখা যাচ্ছে অন্য দিকে অভিভাবকরা অস্বস্তিতে পড়ে যাচ্ছে। আপনার শিশুর আগের মত আর খাচ্ছে না শুকনা দেখাচ্ছে বিভিন্ন সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। শিশুর মুখে খাবার তুলে ধরলে হাত সরিয়ে দিচ্ছে আবার অনেকে মাঝে মাঝে এই খাবার আমার পছন্দ হয় না এ খাবার আমি খাব না ইত্যাদি বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে শিশুরা খাবার খাচ্ছে না। কেন শিশুরা খেতে চায় না কি করলে সঠিকভাবে খাবে কিভাবে বাচ্চাকে খাওয়ানো দরকার এসব বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা।

পছন্দমতো খাবার বেছে নেওয়ার সুযোগ

শিশুদের একদম কম বয়স থেকে এক বা একাধিক খাবারের বিকল্প হিসেবে নিজের পছন্দের মত খাবার টি বেছে নেওয়ার সুযোগ করে দিতে হবে। এটি শিশুদের স্বাস্থ্যকর খাবার করতে অভ্যস্ত করে তোলে। এই পদ্ধতিতে শিশুদের কোন খাবার খেতে অস্বীকার বা অনিহা ঝুঁকি কমিয়ে আনতে পারে সেই সাথে তাদের নিয়ন্ত্রণে ও সাহায্য করে থাকে। যখন শিশুদের এই বিকল্প পদ্ধতি ব্যবহার না করে তখন শিশুরা চুপ থেকে যেতে পারে এবং হতাশ হয়ে যেতে পারে। খাবারে অনিহার সৃষ্টি হতে পারে।

সন্তানের খাওয়ার অভ্যাস কিভাবে বাড়াবেন
সন্তানের খাওয়ার অভ্যাস কিভাবে বাড়াবেন

ছোট ছোট কিছু পদক্ষেপ এর মাধ্যমে খাবার খাওয়ানো

যে সকল শিশু খাওয়ার ব্যাপারে উদাসীন বা অস্থির সে সকল শিশুরা সঠিকভাবে খাদ্যাভ্যাস গড়ে তোলার জন্য খুব সহজ ব্যাপার নয়। এজন্য শুরু থেকে ছোট ছোট পরিবর্তন আনার মাধ্যমে শিশুদের খাবার সময় চাপ এড়ানো সম্ভব। এটি নিশ্চিত করতে হবে যে শিশুরাও পছন্দ করে এমন সকল কিছু নিরাপদ খাবার আপনার তালিকায় রয়েছে কিনা সেটি অল্প পরিমাণ হলেও আপনাকে খাবারের তালিকা রাখতে হবে। যদিও আপনার শিশু এটি খেতে প্রত্যাখ্যান করতে পারে তবে আপনাকে ধৈর্য ধরে বারেবারে খাওয়ানোর চেষ্টা করতে হবে।

কোন কিছু খাওবার শেষ হতে না হতে আরেকটি খাবার দেওয়া

আমরা অনেকেই শিশুদের বিভিন্ন খাবারের সাথে পরিচয় করে দিতে পছন্দ করেন। এটা একদিকে যেমন ভালো বিষয় অন্যদিকে একটি একটি খাবারের সৃষ্টি করতে পারে। আর সেটি হল কোন কিছু খেতে খেতে খাবারের শেষ না হতেই অন্য একটি খাবার তাকে খাওয়ার জন্য বললে সে খাওয়ার প্রতি অনিহা সৃষ্টি হতে পারে। এটা বিশেষ করে শিশুদের আমাদের ভাতের খাবারের প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলে।

খাবারের সময়সূচী নির্ধারণ করুন

বয়স বাড়ার সাথে সাথে শিশুদের ক্ষুধা লাগার বিষয়টাও কিছুটা ভিন্নতা রয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী বা সময় সুচি অনুযায়ী শিশুদের খাওয়ানোর অভ্যাস করতে পারলে খাবারের প্রতি তাদের আগ্রহ বেড়ে থাকে। আপনার শিশুকে কি কি খাওয়াচ্ছেন সেটা বড় বিষয় নয় বিষয় হচ্ছে কখন খাওয়াচ্ছেন। আপনার শিশুকে প্রতিদিন সময় অনুযায়ী খাওয়ানোর অভ্যাস করুন এতে করে আপনার সন্তানের খাওয়ার আগ্রহ বাড়বে।

এছাড়া অন্যান্য বিষয় মেনে চলুন যেমন

  • একটি নিয়মিত রুটিন তৈরি করুন। প্রতিদিন একই সময়ে খাবার খাওয়ানোর চেষ্টা করুন
  • শান্ত ও আনন্দময় পরিবেশ তৈরি করুন। খাওয়ানোর সময় মোবাইল বা টিভি দেখা বন্ধ করুন এবং খাওয়ার সময় পরিবারের সাথে গল্প করুন।
  • বাচ্চাদেরকে টেবিলে বসে খেতে উৎসাহিত করা। এ সময় খাবার টেবিলে পরিবেশন করুন এবং পরিবারের সকলের সাথে বসে খেতে উৎসাহিত করুন।
  • শিশুদেরকে খাবার পরিবেশনে সাহায্য করতে দিন।  শিশুদেরকে খাবারের প্লেট সাজাতে, খাবার পরিবেশন করতে সাহায্য করুন।
  • শিশুদেরকে খেতে বাধ্য করবেন না, ধৈর্য ধরুন এবং তাদের নিজে থেকে খেতে উৎসাহিত করুন।
  • খাবার আকর্ষণীয়ভাবে পরিবেশন করুন। ফল ও শাকসবজি সুন্দরভাবে কেটে পরিবেশন করুন।

যদি শিশুদের খাওয়ার অভ্যাস নিয়ে উদ্বিগ্ন থাকেন। তাহলে একজন শিশু বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ নিন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top