সাদা স্রাব দূর করার ঘরোয়া উপায়

সাদা স্রাব, যাকে লিউকোরিয়ারও বলা হয়, ভ্যাজাইনাল বা যৌনাঙ্গ থেকে নির্গত একটি সাদা,  হলদে, স্বচ্ছ বা দুধের মতো তরল। সাদা স্রাব একটি সাধারণ শারীরবৃত্তীয় ঘটনা যা সাধারণত মাসিক চক্রের বিভিন্ন সময়ে ঘটে। এটি মাসিকের বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন পরিমাণে হয়ে থাকে। এই সাদা স্রাব যৌনাঙ্গের সকল জীবনে দূর করতে সাহায্য করে থাকে। আবার অনেক সময় ছত্রাকের সংক্রমণ অথবা যৌনসঙ্গম গঠিত সংক্রামক রোগের কারণেও এই সাদাস্রাব হতে পারে। তবে, যদি সাদা স্রাব অস্বাভাবিকভাবে ঘন, দুর্গন্ধযুক্ত বা অন্যান্য উপসর্গ যেমন চুলকানি, জ্বালাপোড়া বা ব্যথার সাথে থাকে, তাহলে এটি একটি সংক্রমণের লক্ষণ হতে পারে।

সাদাস্রাব কেন হয়?

অনিরাপদ যৌনসঙ্গম, শারীরিক দুর্বলতা বা অপুষ্টি, যৌনাঙ্গের আশপাশের জায়গার অপরিচ্ছন্নতা এবং গর্ব অবস্থায় যৌনাঙ্গের কোথাও আঘাত পেলে বা প্রস্তাবে সংক্রমণ হলে সাদাস্রাব হয়ে থাকতে পারে। ভ্যাজাইনালে ছত্রাক বা ব্যাকটেরিয়াজনিত সংক্রমনের মাধ্যমে অনেক সময় সাদা স্রাব এর কারণ হয়ে থাকে। অনেকে মনে করেন যে অতিরিক্ত সাদাস্রাবের কারণে স্বাস্থ্য কমে যায় এবং শারীরিক দুর্বলতা অনুভব করে এবং অন্যান্য সমস্যা সৃষ্টি হয়। এ সকল ধারণা থেকে সাদাস্রাব বন্ধ করার উপায় জানতে চাই অনেকেই। তবে এসব ধারণা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন।

সাদা স্রাব দূর করার ঘরোয়া উপায়
সাদা স্রাব দূর করার ঘরোয়া উপায়

সাদাস্রাব কি পরিমান হলে স্বাভাবিক মনে করবেন

সাদাস্রাবের পরিমাণ মাসিক চক্রের বিভিন্ন সময়ে পরিবর্তিত হতে পারে। তবে সাধারণত, দিনে ২ থেকে ৫ মিলিলিটার সাদাস্রাব নির্গত হওয়া স্বাভাবিক ধরে নেওয়া হয়। তবে কখনো কখনো এর চেয়ে কিছুটা কম বেশি হতে পারে। তবে, ভ্যাজাইনাল এর আশেপাশের অঞ্চলটি যদি ভেজা বা স্যাতস্যাতে থাকে তবে এটিও স্বাভাবিক।

সাদাস্রাবের পরিমাণ যদি ৫ মিলিলিটারের বেশি হয়ে থাকে বা যদি এটি ঘন, দুর্গন্ধযুক্ত বা অন্যান্য উপসর্গ যেমন চুলকানি, জ্বালাপোড়া বা ব্যথার সাথে থাকে, তাহলে এটি একটি সংক্রমণের লক্ষণ হতে পারে।

সাদা স্রাবের প্রতিকার এর উপায়

সাদা স্রাব দূর করার জন্য কিছু ঘরোয়া উপায় রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে:

  • পিঁয়াজ: পিঁয়াজে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টিফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা সাদা স্রাব কমাতে সাহায্য করতে পারে। প্রতিদিন সকালে এবং সন্ধ্যায় ২ চা চামচ পিঁয়াজের রস এবং সমপরিমাণ মধু মিশিয়ে পান করুন।
  • ঢেরস: সাদা স্রাবের সমস্যা দূর করার জন্য আরেকটি ভালো ঘরোয়া উপায় হলো ঢেঁড়স। কয়েকটিস পানিতে সিদ্ধ করে গেলে খেতে পারেন। অথবা ভর্তা করেও খেতে পারেন। অনেকে আবার এটি দইয়ের সাথেও মিশিয়ে খান।
  • আমলকী: আমলকীতে ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা সাদা স্রাব কমাতে সাহায্য করতে পারে। আমলকীর রস এবং মধু একসাথে মিশিয়ে প্রতিদিন সকালে পান করুন।
  • টমেটো: টমেটোতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা সাদা স্রাব কমাতে সাহায্য করতে পারে। প্রতিদিন কাঁচা টমেটো খাওয়া বা টমেটো জুস পান করা ভালো।
  • জিরা: জিরাতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা সাদা স্রাব কমাতে সাহায্য করতে পারে। ১ চা চামচ জিরা গুঁড়ো এক গ্লাস গরম জলে মিশিয়ে পান করুন।
  • মেথি: মেথির বীজ খেলে সাদা স্রাবের সমস্যা সমাধান অনেকটাই কমে যায়। আধা লিটার পানিতে কিছু মেথি সিদ্ধ করে প্রতিদিন এটি পান করুন দেখবেন আপনার সাদা স্রাব ভালো হয়ে যাবে।
  • ধনিয়া পাতা: কয়েকটি ধনিয়া পাতা সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রেখে সকালে খালি পেটে প্রতিদিন এটি খেতে পারেন দেখবেন অনেক উপকার হবে। সাদা স্রাবের অন্যতম উপায় সহজ এবং নিরাপদ ঘরোয়া পদ্ধতি।
  • তুলসী পাতা: বিভিন্ন রোগ ভালো করতে যুগ যুগ ধরে ব্যবহৃত হয়ে আসছে এই তুলসী পাতা। সাদা তাবির জন্য কয়েকটি তুলসী পাতা পানিতে সিদ্ধ করে নিয়ে সেটাতে কিছু মধু মিশিয়ে প্রতিদিন দুবার খেতে পারেন। এতে অনেক উপকার হবে। আপনি চাইলে দুধের সাথে তুলসী পাতা খেতে পারেন
  • পেয়ারা পাতা: পেয়ারা পাতা পানির সাথে মিশিয়ে সিদ্ধ করেন ঠান্ডা হওয়ার পর পান করতে পারেন এতে আপনি সাদা স্রাবের পাশাপাশি চুলকানির মতো সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন। এটি দিনে দুবার খেতে পারেন।
সাদা স্রাবের প্রতিকার এর উপায়
সাদা স্রাবের প্রতিকার এর উপায়

এই ঘরোয়া উপায়গুলি ছাড়াও, সাদা স্রাব কমাতে সাহায্য করার জন্য কিছু সাধারণ স্বাস্থ্যবিধি নিয়ম মেনে চলা গুরুত্বপূর্ণ। এর মধ্যে রয়েছে:

  • নিয়মিত যোনি পরিষ্কার করা: যোনিকে খুব বেশি পরিষ্কার করা ক্ষতিকারক হতে পারে। দিনে একবার হালকা সাবান এবং পানি দিয়ে যোনি পরিষ্কার করুন।
  • ঢেলেঢালা পোশাক পরে ধান করা: সব সময় খোলামেলা বা ঢেলেঢালা শক্তির কাপড় ব্যবহার করা উচিত।
  • সঠিক অন্তর্বাস পরা: সুতি অন্তর্বাস পরা ভালো যা যোনির বাতাস চলাচলকে স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে।
  • একই পেড বার বার ব্যবহার না করা: একই পেট ৬ ঘন্টা ব্যবহার না করাই ভালো। রাতে ঘুমানোর পূর্বে অবশ্যই পেড পরিবর্তন করে নিতে হবে।
  • নিজের ব্যক্তিগত জিনিসপত্র শেয়ার না করা: আপনার টয়লেট ব্রাশ, তোয়ালে এবং অন্যান্য ব্যক্তিগত জিনিসপত্র অন্য কারো সাথে শেয়ার করবেন না।
  • পানি পান করা: প্রতিদিন নিয়মিত প্রচুর পানি পান করতে হবে। সতেজ ফলমূল শাকসবজি এবং অন্যান্য খাবার খেতে হবে। প্রক্রিয়াজাত খাবার এবং চিনি খাওয়ার কমিয়ে দিতে হবে।

যদি সাদা স্রাব তীব্র হয় বা অন্যান্য উপসর্গ যেমন চুলকানি, জ্বালাপোড়া বা ব্যথার সাথে থাকে, তাহলে একজন ডাক্তারের সাথে দেখা করা গুরুত্বপূর্ণ। ডাক্তার সংক্রমণের কারণ নির্ণয় করতে এবং উপযুক্ত চিকিৎসা দিতে সক্ষম হবেন।

এখানে কিছু অতিরিক্ত টিপস রয়েছে যা সাদা স্রাব কমাতে সাহায্য করতে পারে:

  • জনসংগ্রামের সময় রোগ প্রতিরোধের জন্য কনডম ব্যবহার করতে পারেন।
  • প্রচুর পরিমাণে ফল এবং শাকসবজি খান।
  • মানসিক চাপ কমাতে চেষ্টা করুন।
  • ডায়াবেটিস থাকলে সেটি নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।
  • আপনার ডায়েটে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন।
  • পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমান।
  • নিয়মিত ব্যায়াম করুন।

এই সাদা স্রাবের ভালো করতে অবশ্যই একজন ভালো চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করে নিবেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top